গলায় মাছের কাঁটা আটকালে করণীয়

Share:
Fish-Bone
মাছে ভাতে বাঙালি, অত্যন্ত পুরনো একটা প্রবাদ| মাছ খাবেন অথচ মাছের কাঁটা আটকাবে না, সেটা কি করে হয়? কোন কারণে যদি আপনার গলায় মাছের কাঁটা আটকে যায় সেটা অত্যন্ত কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায় এবং এই মাছের কাঁটা কে বের করার জন্য তৎক্ষণাৎ আপনি কি করতে পারেন? সেটা আজকে আমি আপনাকে বলব|

1. গলায় মাছের কাঁটা আটকে গেলে ওই মুহূর্তে আপনার খাওয়া বন্ধ করে দেওয়া উচিত| তারপর আপনি শুকনো ভাত, বলের মত করে নিয়ে গিলে খেতে পারেন | যেটা আপনারা অবশ্যই জানেন| এটা করলে আপনার গলায় আটকে থাকা কাঁটা নিচে নেমে যেতে পারে |


2. আপনি কয়েক গ্লাস জল খেতে পারেন। অথবা গরম জলে লবন দিয়ে সেটা খেতে পারে জল এর সঙ্গে আপনার মাছের কাটা নিচে নেমে যাবে,


3.যদি না হয় তাহলে আপনি পাকা কলা খেতে পারেন, ছোট ছোট টুকরো করে না চিবিয়ে যদি আপনি সেটা খেয়ে নেন তাহলে আপনার কাটা নেমে যাবে।


5. যদি কাজ না হয় আপনি লেবুর রস খেতে পারেন। হাতে এক টুকরো লেবু নিন তারপর লবণ মাখিয়ে ধীরে ধীরে সেটা খেয়ে নিন আপনার কাঁটা নরম হয়ে নেমে যাবে।


6.তাতে যদি না হয়, আপনার ঘরে অলিভ অয়েল থাকে সেটা খেয়ে নিতে পারেন


7. তাতে যদি কাজ না হয় এখন সর্বাধুনিক পদ্ধতি টা হচ্ছে কোকাকোলা অথবা কোন ধরনের কোলড্রিংস আপনি যদি নিতে পারেন তাহলে আপনার কাটা নেমে যায়।

8.যদি আপনার ঘরে ভিনেগার থাকে তাহলে একটু ভিনেগার জলে মিশে যদি আপনি খেয়ে নেন তাহলে আপনার গলার কাঁটা নেমে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি


9. এত কিছু করার পরেও যদি আপনার গলায় আটকে থাকা কাটা না নামের সেই ক্ষেত্রে বাড়ির বয়স্করা হয়তো আপনাকে ঝাড়ফুঁকের জন্য নির্দেশ দেবে । আপনার গ্রামের কেউ আছে যারা মাছের কাটার জন্য ঝাড়ফুঁক করে থাকে। আর যদি কেও না থাকে, আমি একটা মন্ত্র লিখে দিচ্ছি এইটা কি আপনি ব্যবহার করতে পারেন। যদি আপনি বিশ্বাস করে এটা করেন, আর গলায় হালকা ভাবে উপর থেকে নিচে হাত বুলান, সেই ক্ষেত্রে হয়তোবা আপনার গলায় আটকে থাকা কাটান নেমে যাবে কিছু সময়ের ভিতর। মন্ত্রটা হচ্ছে


গঙ্গা যমুনা ত্রিবেণী স্মরণ করিয়া তাই
ধর্মের আজ্ঞ্যায় কাঁটা নেমে যাবে ভাই

10. গলার কাঁটা নামানোর আরেকটি কার্যকর পদ্ধতি হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা। হোমিওপ্যাথিক ডক্টর থাকে তাহলে আপনি উনার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন খুব সহজেই হোমিওপ্যাথি ওষুধের মাধ্যমে কাটা দূর করতে পারেন|

এতগুলো পদ্ধতি অবলম্বন করার পরেও যদি আপনার গলায় আটকে থাকা কাটার না নামে সেই ক্ষেত্রে আপনাকে অতি দ্রুত আপনার নিকটবর্তী কোন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত।


কোন মন্তব্য নেই

Please share your opinion

_M=1CODE.txt Displaying _M=1CODE.txt.