জানুন ক্রেতাদের স্বার্থ সুরক্ষার কিছু গুরুত্বপূর্ণ নম্বর

Share:

আজ ওয়ার্ল্ড কনজিউমার রাইটস ডে, প্রতিবছর ১৫ ই মার্চ সারা বিশ্বের ক্রেতাদের সচেতন করতে এ দিনটি বিশেষ ভাবে পালন করা হয়।আর সচেতন তো করতেই হবে কেননা আমরা সবাই, যে যেখানেই থাকি না কেন, যত বড় পোস্টে চাকরি করি না কেন, দিনের শেষে ঘরে ফেরার আগে অথবা ঘর থেকে বেরুনোর পথে আমাদের সবাইকে ক্রেতা সাজতে হয়। কিছু না কিছু জিনিস আমরা প্রতিনিয়তই কিনে থাকি জীবন জীবিকার জন্য। আর এই ক্রেতা বিভিন্ন সময়ে, নানাভাবে প্রতারণার শিকার হয়, আর এর প্রমাণ অজস্র আছে।


ধরুন এক প্যাকেট মেগি কিনতে গেলেন অথবা একটা চকলেট। কিন্তু দেখা গেল সেখানে আপনার এমআরপি অথবা মেনুফেকচারিং যেদিন এই পণ্য তৈরি করা হল সেই সর্বোচ্চ সময়সীমা পেরিয়ে গেছে, এমনও দেখা যায় হয়তো একটা জিনিসের দাম  ৯ টাকা কিন্তু দোকানদার অথবা বিক্রেতা আপনার কাছ থেকে ১০ টাকা চাইল। প্রতিদিন মোবাইল ফোনে হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা। নানাভাবে প্রতিটা লেনদেনের ক্ষেত্রে মানুষ এভাবে প্রতারণার শিকার হচ্ছে সচেতন না থাকার কারণে।

ক্রেতাদের  কিছু সুবিধা দেওয়ার জন্য আমাদের দেশে একটি আইনি ব্যবস্থা আছে। সেই সম্বন্ধে অবগত না হওয়ার কারণে মানুষ এই সমস্ত প্রতারণা গুলি নিজের কাছেই পুষে রাখে এবং চুপচাপ চলে যায়। এর থেকে বাঁচার জন্য আমাদের দেশে অর্থাৎ ভারতবর্ষে একটি নির্দিষ্ট আইনি ব্যবস্থা আছে। সেই সঙ্গে প্রতিমুহূর্তেই টিভি-রেডিও অথবা খবরের কাগজে খুললে আপনি জাগো গ্রাহক জাগো বলে একটি বিজ্ঞাপন নিশ্চয়ই দেখেন অথবা একটি লোগো দেখতে পান। আজ বিশ্ব ক্রেতা সুরক্ষা দিবস এই দিবস উপলক্ষে রাজ্যের তথা দেশের বিভিন্ন মন্ত্রী মন্ডল থেকে বিবৃতি আসছে। আজকের দিনে মানুষকে সচেতন করার জন্য বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। তাই আপনাদের  সুরক্ষার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ নাম্বার যোগাযোগের জন্য এখানে উল্লেখ করলাম



 

ভারতের ন্যাশনাল কনজ্যুমার হেল্পলাইন চালু আছে  এই নাম্বারে আপনি সকাল সাড়ে নয়টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত বিনামূল্যে কল করে আপনার অভিযোগ জানাতে পারেন। টোল ফ্রি নাম্বার টি হল 18001 1400 অথবা 14404 তবে এই নাম্বারটি জাতীয় ছুটির দিনে বন্ধ থাকে। আপনি এসএমএস করতে পারেন আর 8300 09809 তাহলে এই ডিপার্টমেন্ট থেকে আপনার কাছে কল আসবে। অথবা আপনি গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে এনসিএইচ-অ্যাপটি ডাউনলোড করতে পারেন এবং আপনি আপনার অভিযোগ এখানে লিপিবদ্ধ করতে পারেনক্রেতা স্বার্থ সুরক্ষায় কনজিউমার প্রটেকশন অ্যাক্ট ২০১৯ সালে বিবেচনায় আসে এবং ২০ জুলাই ২০২০ থেকে এটাকে চালু করা হয়। এ আইনের আওতায় মোটামুটি সব ধরনের আদান-প্রদানে আসছেন যেমন ধরুন ই-কমার্স সাইটগুলো, যেখানে সরাসরি বিক্রয় হয় বা  বিভ্রান্তকর বিজ্ঞাপনগুলো

 

এইসবই এ আইনের আওতায় পড়ে, এখন আপনার অভিযোগ যদি এক কোটি টাকার নিচে লেনদেনের ক্ষেত্রে হয় সেক্ষেত্রে আপনাকে যেতে হবে ডিসট্রিক কমিশনের কাছে, ১ থেকে ১০ কোটি টাকার ভিতরে হলে স্টেট কমিশন ১০ কোটি টাকার উপরে লেনদেনের জন্য যদি আপনার রিপোর্ট করতে  ন্যাশনাল কমিশনের কাছে।

এখানে ক্রেতার অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে বিক্রেতাকে বিপুল অঙ্কের জরিমানা প্রদান করতে হচ্ছে তার প্রমাণও অজস্র।


কোন মন্তব্য নেই

Please dont enter any spam link in the comment box.

_M=1CODE.txt Displaying _M=1CODE.txt.