গত দু'বছর ধরে ঢাকিদের নেই তাই না আর্থিক কষ্টের মধ্যে রয়েছেন তার

Share:

দুর্গাপূজার সময় পূজার যেরকম উপকরণ দরকার হয়। পাশাপাশি প্রয়োজন পড়ে ঢাকিদের । এই ঢাকীদের বাজনা প্রতিমা আরো বেশি আকর্ষণীয় করে তোলে। বিশেষ করে বনেদি বাড়ির পুজো গুলিতে যেখানে বলির প্রথা রয়েছে সেখানে ঢাকিদের অবশ্যই দরকার হয়। আগে দুর্গাপুজো চারদিনি তাদেরকে ঢাক বাজিয়ে যেতে হত মন্দিরে মন্দিরে। মুর্শিদাবাদ বীরভূম প্রভৃতি এলাকা থেকে ঢাকীরা রওনা দিত কলকাতায়। সেখানে যে সমস্ত মন্ডপ গুলি তৈরি হয় সেই মণ্ডমণ্ডপে ঢাকীদের উপস্থিতি নজর কাড়ে। কিন্তু গত বছর থেকে সেই সমস্ত ঢাকিদের আর্থিক অবস্থা একেবারে কমে গিয়েছে। তার একটাই কারণ কভিড নাইনটিন। 

কোন কোন পূজা মন্ডপ গেলেই চোখে পড়তো ঢাকের আওয়াজ। সেই আওয়াজ এখন আর পাওয়া যায় না। যে পূজামণ্ডপগুলোতে ৫ কি কিংবা ৬ ছটি ঢাকি লাগতো। সেখানে এখন একটি কিংবা দুটিকে নিয়ে চালাতে হচ্ছে। ফলে ঢাকিরা পড়েছে মহা সংকটে তাদের যে টাকা উপার্জন হত সেই টাকা তারা পাচ্ছে না । ঢাকের চাহিদা কমে যাওয়ায় ডাকীদের আর্থিক অবস্থা তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। আর্থিক সংকটে কলকাতার পুজোর উপরেই নির্ভর করে ওই সমস্ত ঢাকিরা । কলকাতায় পাড়ি দিত পঞ্চমীর দিন থেকে। প্রতিমা বিসর্জনের সময় সবক্ষেত্রেই তাদের কদর ছিল দু'বছর আগে পর্যন্ত। কিন্তু এখন আর সেই ঢাকিরা ঢাক বাজা বার সুযোগ পাইনা । ডাকিরা পড়েছে মহা সংকটে। তারা পুজোর সময় যে টাকা পেত পূজা কমিটির পক্ষ থেকে সেই টাকাও কমতে আরম্ভ করেছে। ফলে আর সারিবদ্ধ ভাবে ঢাকের আওয়াজ শুনতে পাওয়া যায় না মণ্ডপগুলোতে । শুধু যে কলকাতায় ঢাকিরা থাকত তা নয়। তারা পাড়ি দিত মুম্বাই উত্তর প্রদেশ মহারাষ্ট্র দিল্লি প্রভৃতি এলাকায় সেখানে টাকার পরিমাণ বেশি তাই ঢাকির বায়না ধরতে সেই সমস্ত দুর্গাপূজা মন্ডপের । কিন্তু এবার থেকে আর তা হচ্ছে না অনেক মন্দিরে মায়ের আরতি করার জন্য ডাকিদের দরকার হতো ।কিন্তু এখন যান্ত্রিক ঢাকের আওয়াজে ঢাকী দের ঢাকের যে আওয়াজ সেই আওয়াজ আস্তে আস্তে কমতে লেগেছে । কোন কোন ঢাকিরা জানিয়েছেন এবছর আমরা সেরকম ধরনের কোন বায়না পাইনি।


আমরা যে দূর-দূরান্তে গিয়ে ডাক বাজাতাম সেই বকেয়া টাকা আমরা পাইনি। আমাদের অবস্থা এখন শোচনীয়। যার কপাল ভালো সেই একমাত্র বিভিন্ন পূজা মন্ডপ ঢাক বাজানোর সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু আমরা এখনো পর্যন্ত সেরকম কোন সুযোগ সুবিধা পায়নি। ফলে ঢাকিদের অবস্থা দিনের পর দিন যে খারাপ হতে চলেছে তার নিদর্শন পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন পূজা মন্ডপে।

কোন মন্তব্য নেই

Please dont enter any spam link in the comment box.

_M=1CODE.txt Displaying _M=1CODE.txt.